রাত ৮:১৮ | শুক্রবার | ৩রা জুলাই, ২০২০ ইং

কেন্দুয়ায় মাদ্রাসার অধ্যক্ষ এক বছরে ছয় শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করেছে: দুই মামলা

নেত্রকোণা প্রতিনিধি:

কেন্দুয়ার সেই অধ্যক্ষের নামে দুটি ধর্ষণের মামলা দায়ের করা হয়েছে। এক বছরে তিনি ছয় শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করেছে। থানায় আটকের হবার পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি স্বীকার করেছেন। শুক্রবার
মাদ্রাসার শিশু শ্রেণির এক ছাত্রীকে (১১) ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ (মুহ্তামিম)কে আটক করেছে কেন্দুয়া থানা পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে নেত্রকোণা জেলার কেন্দুয়া উপজেলা সদরের বাদে আঠারবাড়ী মা হওয়া (আঃ) কওমী মহিলা মাদ্রাসায়।
স্থানীয় এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, মাওলানা আবুল খায়ের বেলালী স্থানীয় শিক্ষানুরাগীদের সহায়তায় ২০১৫ সালে অত্র মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করে অধ্যক্ষের (মুহ্তামিমের ) দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে মাদ্রাসার মুহতামিম শিশু শ্রেণির শিক্ষার্থীকে তার কক্ষে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করে। এ সময় শিশুটির চিৎকারে অন্যান্য শিক্ষার্থীরা ছুটে এসে অধ্যক্ষকে (মুহতামিমকে) হাতে নাতে ধরে ফেলে। পরে স্থানীয় লোকজন মুহতামিমকে গণধোলাই দেয়ার সময় খবর পেয়ে পুলিশ অভিযুক্ত মুহতামিমকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।
এ ব্যাপারে কেন্দুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ রাশেদুজ্জামান জানান, দুটি ধর্ষণ মামলা হয়েছে মাদ্রাসার ওই অধ্যক্ষর (মুহতামিম) নামে। জিজ্ঞাসাবাদে করা হচ্ছে ।

নেত্রকোণার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মো: শাহজাহান মিয়া ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সামাজিক মাধ্যমে লিখেছেন, তিনি একজন দাওরায়ে হাদীস,(সিলেট বালুরচর কওমী মাদ্রাসা হতে) মাওলানা, একজন বক্তা, একজন ইমাম, শুক্রবারে জুমআর নামাজের খতিব। মাওলানা(!) আবুল খায়ের বেলালী। শুক্রবারে তার বয়ান শুনার জন্য আধা ঘন্টা আগে মুসল্লীগণ এসে অপেক্ষা করেন মসজিদে। কেন্দুয়ার আঠারবাড়ি এলাকায় মা হাওয়া (আ:) কওমী মহিলা মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক (মুহতামিম) যে মাদ্রাসায় রয়েছে প্রায় 35 জন অপ্রাপ্ত বয়স্ক ছাত্রী যাদের 15 জন আবাসিক। সেখানে তিনিও আবাসিক। সময় সুযোগ বুঝে তিনি কলিংবেল চাপেন আর ওনার পছন্দমত একজন কোমলমতি ছাত্রীর ডাক পরে তার গা-হাত-পা টিপে দেবার জন্য। আর এক পর্যায়ে তিনি সেই অবুঝ শিশুদের উপর ঝাপিয়ে পরেন,এবং শেষে আবার কোরআন শরীফ হাতে দিয়ে শপথ করান কাউকে কিছু না বলার জন্য, বললে কিন্তু আল্লাহ তোমাকে দোযখের আগুনে পোড়াবেন। ভয়ে কোমলমতি ছাত্রীরা কাউকে কিছু বলেন না। কিন্তু এক সাহসী বীরাঙ্গনা সেই ভয়ের সঙ্গে যুদ্ধ করে জয়ী হয়, বলে দেয় তার বড় বোন সহ বাড়ির সবাইকে সেই যন্ত্রনার মুহুর্ত গুলোর কথা। স্থানীয় এলাকাবাসীর সহায়তায় আটক হন সেই হুজুররূপী ধর্ষক। থানায় আটক থাকা অবস্থাতেই আরো একজন শিশুশ্রেনীর ছাত্রীর অভিযোগ জমা পড়ে। দুইটি ধর্ষণ মামলা হয়েছে তার নামে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তথ্য পাই, গত একবছরে আরো মোট 6 জন ছাত্রীর সাথে তিনি অনুরূপ কুকর্ম করেছেন যাদের সবারই বয়স 8 থেকে 11 এর মধ্যে। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে কিছু আলামত জব্দ করি সাথে সেই ”কলিংবেল” টি ও যা আদালতে উপস্থাপন করা হবে। হুজুরকে রিমান্ডে আনা হবে।



Print Friendly, PDF & Email
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন : Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» নেত্রকোনায় সাংবাদিক লিটন ধর গুপ্তের পরলোকগমন

» গৃহকর্মীর রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনায় নেত্রকোনায় ইউপি চেয়ারম্যান আটক

» নেত্রকোনায় কর্মহীন হত-দরিদ্রদের মাঝে জনউদ্যোগের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ

» করোনায় দেশে নতুন শনাক্ত ৫৬৪ জন, মৃত্যু আরো ৫ জন

» নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলায় মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি এবং বাংলাদেশ গার্লস গাইড এসোসিয়েশনের উদ‌্যোগ ত্রাণ বিতরণ

» করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৮ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৬৪১

» পড়ার খরচ বাঁচিঁয়ে অসহায়ের পাশে -ছাত্রলীগ নেতা রিফাত

» করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৫ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৪১৮ জন

» গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা নতুন শনাক্ত হয়েছেন আরো ২১৯ জন, আরো ৪ জনের মৃত্যু

» নেত্রকোণা করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১৬ , ৯ জন পুরুষ ৭ জন মহিলা

» নেত্রকোণায় প্রতিপক্ষের হামলায় কলেজ ছাত্র আহত

» খালিয়াজুরীতে সর্দি জ্বর ও শ্বাসকষ্টে এক জনের মৃত্যু: নমুনা সংগ্রহ: বাড়ি লকঢাউন

» নেত্রকোণায় ক্যান্সার,কিডনি রোগী ও হিজড়াদের মাঝে অনুদানের চেক বিতরণ

» নেত্রকোনার দুর্গাপুরে ভগ্নিপতিকে বাচাঁতে গিয়ে শ্যালক নিহত

» সাংবাদিক আরিফুল ইসলামের উপর হামলাও নির্যাতনের প্রতিবাদে নেত্রকোনায় মানববন্ধন


উপদেষ্টা : শ্যামলেন্দু পাল

সম্পাদক ও প্রকাশক  : মোঃ জহিরুল ইসলাম খান (কবির)

আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বা‌ণি‌জ্যিক কার্যালয় –

সাতপাই(মাষ্টারপাড়া), নেত্র‌কোনা।
ফোন: ০৯৫১৬২৬৮৪

মোবাইল: ০১৭১৭২২৬৮৮৯           

ই‌-মেইল: kabirtvpress@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার নেত্র প্রতিদিন.কম

কারিগরি সহযোগিতায় :- ই-নেট বাংলাদেশ

,

basic-bank

কেন্দুয়ায় মাদ্রাসার অধ্যক্ষ এক বছরে ছয় শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করেছে: দুই মামলা

নেত্রকোণা প্রতিনিধি:

কেন্দুয়ার সেই অধ্যক্ষের নামে দুটি ধর্ষণের মামলা দায়ের করা হয়েছে। এক বছরে তিনি ছয় শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করেছে। থানায় আটকের হবার পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি স্বীকার করেছেন। শুক্রবার
মাদ্রাসার শিশু শ্রেণির এক ছাত্রীকে (১১) ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ (মুহ্তামিম)কে আটক করেছে কেন্দুয়া থানা পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে নেত্রকোণা জেলার কেন্দুয়া উপজেলা সদরের বাদে আঠারবাড়ী মা হওয়া (আঃ) কওমী মহিলা মাদ্রাসায়।
স্থানীয় এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, মাওলানা আবুল খায়ের বেলালী স্থানীয় শিক্ষানুরাগীদের সহায়তায় ২০১৫ সালে অত্র মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করে অধ্যক্ষের (মুহ্তামিমের ) দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে মাদ্রাসার মুহতামিম শিশু শ্রেণির শিক্ষার্থীকে তার কক্ষে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করে। এ সময় শিশুটির চিৎকারে অন্যান্য শিক্ষার্থীরা ছুটে এসে অধ্যক্ষকে (মুহতামিমকে) হাতে নাতে ধরে ফেলে। পরে স্থানীয় লোকজন মুহতামিমকে গণধোলাই দেয়ার সময় খবর পেয়ে পুলিশ অভিযুক্ত মুহতামিমকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।
এ ব্যাপারে কেন্দুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ রাশেদুজ্জামান জানান, দুটি ধর্ষণ মামলা হয়েছে মাদ্রাসার ওই অধ্যক্ষর (মুহতামিম) নামে। জিজ্ঞাসাবাদে করা হচ্ছে ।

নেত্রকোণার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মো: শাহজাহান মিয়া ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সামাজিক মাধ্যমে লিখেছেন, তিনি একজন দাওরায়ে হাদীস,(সিলেট বালুরচর কওমী মাদ্রাসা হতে) মাওলানা, একজন বক্তা, একজন ইমাম, শুক্রবারে জুমআর নামাজের খতিব। মাওলানা(!) আবুল খায়ের বেলালী। শুক্রবারে তার বয়ান শুনার জন্য আধা ঘন্টা আগে মুসল্লীগণ এসে অপেক্ষা করেন মসজিদে। কেন্দুয়ার আঠারবাড়ি এলাকায় মা হাওয়া (আ:) কওমী মহিলা মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক (মুহতামিম) যে মাদ্রাসায় রয়েছে প্রায় 35 জন অপ্রাপ্ত বয়স্ক ছাত্রী যাদের 15 জন আবাসিক। সেখানে তিনিও আবাসিক। সময় সুযোগ বুঝে তিনি কলিংবেল চাপেন আর ওনার পছন্দমত একজন কোমলমতি ছাত্রীর ডাক পরে তার গা-হাত-পা টিপে দেবার জন্য। আর এক পর্যায়ে তিনি সেই অবুঝ শিশুদের উপর ঝাপিয়ে পরেন,এবং শেষে আবার কোরআন শরীফ হাতে দিয়ে শপথ করান কাউকে কিছু না বলার জন্য, বললে কিন্তু আল্লাহ তোমাকে দোযখের আগুনে পোড়াবেন। ভয়ে কোমলমতি ছাত্রীরা কাউকে কিছু বলেন না। কিন্তু এক সাহসী বীরাঙ্গনা সেই ভয়ের সঙ্গে যুদ্ধ করে জয়ী হয়, বলে দেয় তার বড় বোন সহ বাড়ির সবাইকে সেই যন্ত্রনার মুহুর্ত গুলোর কথা। স্থানীয় এলাকাবাসীর সহায়তায় আটক হন সেই হুজুররূপী ধর্ষক। থানায় আটক থাকা অবস্থাতেই আরো একজন শিশুশ্রেনীর ছাত্রীর অভিযোগ জমা পড়ে। দুইটি ধর্ষণ মামলা হয়েছে তার নামে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তথ্য পাই, গত একবছরে আরো মোট 6 জন ছাত্রীর সাথে তিনি অনুরূপ কুকর্ম করেছেন যাদের সবারই বয়স 8 থেকে 11 এর মধ্যে। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে কিছু আলামত জব্দ করি সাথে সেই ”কলিংবেল” টি ও যা আদালতে উপস্থাপন করা হবে। হুজুরকে রিমান্ডে আনা হবে।



Print Friendly, PDF & Email
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন : Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0

সর্বশেষ খবর



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বা‌ণি‌জ্যিক কার্যালয় –

সাতপাই(মাষ্টারপাড়া), নেত্র‌কোনা।
ফোন: ০৯৫১৬২৬৮৪

মোবাইল: ০১৭১৭২২৬৮৮৯           

ই‌-মেইল: kabirtvpress@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার নেত্র প্রতিদিন.কম

We Policy Social Link
About Us Terms Of Service Facebook
Advertise Privacy Policy Twitter
Contact us Subscription Youtube

কারিগরি সহযোগিতায় :- ই-নেট বাংলাদেশ